Institute Information

স্কুলের বৈশিষ্ট্য 

০১. প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব জায়গায় সুবিশাল পরিপাটি ক্যাম্পাস। 
০২. যোগ্য পরিচালনা পরিষদ কর্তৃক পরিচালিত। 
০৩. অভিজ্ঞ, মেধাবী, দক্ষ ও নিবেদিত প্রাণ শিক্ষকম-লী দ্বারা  
      প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত। 
০৪. মাল্টি মিডিয়া ক্লাসরুম ও নিজস্ব কম্পিউটার ল্যাব।
০৫. সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা ব্যবস্থাসহ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন পরিবেশ। 

০৬. প্রতিষ্ঠানটি একটি অলাভজনক প্রতিষ্ঠান, এর কোন ব্যবসায়িক  
      অভিপ্রায় নেই। 
০৭. মানবকল্যাণমূখী শিক্ষাদানের মাধ্যমে সুশিক্ষিত ও সুনাগরিক গড়ে  
      তোলা এর প্রকৃত উদ্দেশ্য।
০৮. প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় উপজেলায় সর্বোচ্চ অ+ সহ 
      প্রথম স্থান অধিকার। 
০৯. জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষায় উপজেলায় প্রথম স্থান   
      অধিকার। 
১০. এস.এস.সি পরীক্ষায় শতভাগ পাসসহ উপজেলায় সর্বোচ্চ অ+  
      প্রাপ্ত। 

 

বিশেষ সুবিধা

০১. কি-ার গার্টেন বৃত্তি পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণি হতে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত   
     অংশগ্রহণ। 
০২. প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী, জে.এস.সি ও এস.এস.সি পরীক্ষার জন্য 
      বিশেষভাবে প্রস্তুতি দান। 
০৩. ইংরেজি বিষয়ের প্রতি গুরুত্ব আরোপ। 
০৪. লেখাপড়ায় দুর্বল ছাত্র-ছাত্রী চিহ্নিতকরণ এবং বিশেষ ব্যবস্থা 
      গ্রহণ। 
০৫. নার্সারি, কেজি ও প্রথম শ্রেণিতে শাখা এবং প্রতি শাখায় ৪০ জন 
      ছাত্র-ছাত্রী। 
০৬. পাঠ পরিকল্পনা ও পাঠটীকার মাধ্যমে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান। 
০৭. সাংস্কৃতিক কার্যক্রমে অংশগ্রহণ এবং খেলাধুলা ও বিনোদনের 
      ব্যবস্থা। 

 

প্রতিষ্ঠানের নিয়ম-কানুন ও শৃঙ্খলা সম্পর্কে কতিপয় জ্ঞাতব্য বিষয়

(ক) প্রতিষ্ঠানের প্রত্যেক ছাত্র-ছাত্রীকে নিয়মিতভাবে যথাসময়ে 
      শিক্ষায়তনে উপস্থিত হতে হবে।
(খ) বিশেষ কোন কারণ, অসুবিধা, অসুস্থ ছাড়া প্রতিষ্ঠানে অনুপস্থিত 
     থাকা যাবে না। বিনা কারণে ছাত্র-ছাত্রী ১ (এক) মাস অনুপস্থিত   
     থাকলে তার নাম কেটে দেওয়া হবে। পুনভর্তি ও জরিমানাসহ  
      অন্যান্য প্রাপ্য ফী ও ভাতা প্রদান করতে হবে। অনুপস্থিতির কারণ 
      দর্শিয়ে অভিভাবকগণকে আবেদন করতে হবে।
(গ) প্রত্যেক ছাত্র-ছাত্রীকে নির্ধারিত পোশাকে স্কুলে আসতে হবে। 
(ঘ) ছাত্র-ছাত্রীদিগকে নিয়মিতভাবে কুচকাওয়াজ, শরীর চর্চা, খেলাধুলা 
     এবং অন্যান্য সহপাঠ্যক্রমিক কার্যাবলীতে  অংশগ্রহণ করতে 
     হবে।
(ঙ) যথাসময়ে শিক্ষায়তনে উপস্থিত না হলে তাকে বিলম্বে উপস্থিত 
     বলে গণ্য করা হবে।

 

শিক্ষক  - অভিভাবক সমাবেশ

* বছরে কমপক্ষে ২ বার শিক্ষক - অভিভাবক সমাবেশ আয়োজন।
* প্রতিষ্ঠানের নানাবিধ বিষয়ে আন্তরিকতাপূর্ণ আলোচনা।
* ছাত্র - ছাত্রীদের পরীক্ষিত ভুল - ত্রুটি নিয়ে পর্যালোচনা এবং 
   প্রতিকার ও কর্মপন্থা নিরূপণ।
* ফলাফল সম্পর্কে পর্যালোচনা ও উন্নত কর্মপন্থা নিরূপণ।

 

বিশেষ সুবিধাসমূহ

একজন মেডিকেল অফিসার দ্বারা ছাত্র-ছাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা পত্র প্রদানের ব্যবস্থা রয়েছে। আকষ্মিক দূর্ঘটনা ও রোগাক্রান্ত ছাত্র-ছাত্রীদের প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা স্কুল কর্তৃপক্ষ কর্তৃক স্থানীয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে করা হয়। অবশ্য এ জন্য যাবতীয় খরচ অভিভাবক বহন করবেন।

 

পাঠদান পদ্ধতি

শিক্ষার্থীদের ভাল ফলাফল নির্ভর করে সঠিক নির্দেশনা, সুষ্ঠু পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের উপর। তাই অত্র স্কুলের শিক্ষার্থীদের ভাল ফলাফলের জন্য আধুনিক যুগোপযোগী মানসম্মত পদ্ধতিতে শ্রেণি কক্ষে পাঠ দান করা হয়। 

 

পাঠ্যক্রম বিন্যাস ও পরীক্ষা পদ্ধতি

* পাঠ্যসূচির সাথে সমন্বয় করে একটি শিক্ষবর্ষকে তিনটি সাময়িকে  

    ভাগ করা হয়। 

* প্রতি মাসে মাসিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। 

* প্রতি চার মাসে একটি সাময়িক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। 

* নিয়মিত ক্লাস পরীক্ষার ব্যবস্থা আছে। 

* খবংংড়হ চষধহ অনুযায়ী শ্রেণি কক্ষে পাঠদান, শ্রেণির কাজ করানো  

   ও বাড়ির কাজ দেওয়া হয়।  

* প্রতি টার্মে বন্টনকৃত সিলেবাস শ্রেণিকক্ষে পাঠদানের মাধ্যমে সঠিক  

   সময়ে শেষ করা হয়। 

* প্রত্যেক পরীক্ষা শেষে মূল্যায়ন পত্র বাসায় অভিভাবকের নিকট  

   প্রেরণ করা হয় এবং অভিভাবকের স্বাক্ষরের পর তা ফেরত নেয়া  

    হয়। 

* ৬ষ্ঠ-১০ম শ্রেণিতে নিয়মিত ঞঁঃড়ৎরধষ, ঝইঅ, ঐইঅ পরীক্ষা  

    সমূহ গ্রহণ করা হয়। 

 

অভিভাবকবৃন্দের করণীয় 

* নির্দিষ্ট সময়সূচি অনুযায়ী বিধিসম্মতভাবে সন্তানকে প্রতিষ্ঠানে 

   পাঠানো। 

* সন্তানের স্বাস্থ্য বিধির উপর সতর্ক দৃষ্টি রাখা। যেমন: হাত-পায়ের 

   নখ কাটা, মুখম-ল ও দাঁত পরিস্কার রাখা, চুল ছোট রাখা ইত্যাদি। 

* নির্ধারিত সময়সূচি অনুযায়ী সন্তানের মাসিক বেতন ও অন্যান্য 

   পাওনাদি পরিশোধ করা। 

* সন্তানের আত্মিক ও পাঠোন্নতির ব্যাপারে প্রারম্ভিক অবস্থা থেকে 

   প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষের সাথে সরাসরি এবং ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রক্ষা 

    করা। 

* পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের তিন দিনের মধ্যে পাঠোন্নতির 

   বিবরণীপত্র গ্রহণপূর্বক তা স্বাক্ষর করে সাতদিনের মধ্যে শ্রেণি 

    শিক্ষককে ফেরত দেয়া। 

* প্রতিটি অভিভাবক সমাবেশে উপস্থিত থাকা।